The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

রোমাঞ্চ জাগিয়েও ড্রয়ে শেষ হলো চট্টগ্রাম টেস্ট

রোমাঞ্চ জাগিয়েও ড্রয়ে শেষ হলো চট্টগ্রাম টেস্ট
ছবি: ক্রিকইনফো

দুর্দান্ত বোলিংয়ে আলো ছড়ালেন তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি এই স্পিনারের ছোবলে একটা সময় জমে গিয়েছিল ম্যাচ। সম্ভাবনা জেগেছিল ফল বেরুনোর। কিন্তু নিরোশান ডিকভেলা ও দিনেশ চান্দিমালের চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞার ব্যাটিংয়ে শেষ পর্যন্ত ড্র হলো বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার চট্টগ্রাম টেস্ট।

চতুর্থ দিনের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং শুরু করেন দুই ব্যাটার দিমুথ করুনারত্নে ও কুশাল মেন্ডিস। এর মধ্যে খালেদ আহমেদের এক ওভারেই টানা তিনটি চার মেরেছেন মেন্ডিস। তাইজুল ইসলামের এক ওভারেও তারা ৯ রান নিয়েছেন। নাঈম হাসানের এক ওভারেও ১২ রান নিয়েছেন মেন্ডিস-করুনারত্নে। 

দুইজনই বাংলাদেশের ফিল্ডারদের ভুলে একবার করে জীবন পেয়েছেন। ব্যক্তিগত ৪০ রানে তাইজুল ইসলামের বলে ইন সাইড এজ হয়েও বেঁচে যান মেন্ডিস। কিপার ও ফার্স্ট স্লিপের ফাঁক গলে বল চলে যায় থার্ড ম্যান অঞ্চলে। এরপর সাকিব আল হাসানের একটি বল করুনারত্নের ব্যাটে লেগে প্যাড ছুঁয়ে উইকেটের পেছনে গিয়েছিল। যদিও তা লুফে নিতে পারেননি লিটন দাস।

তাইজুলের লেংথ বল ব্যাটে ছোঁয়াতে পারেননি মেন্ডিস। ফলে বল অফ স্টাম্পে আঘাত হানে। বোল্ড আউট হয়ে ফিরলে ৪৩ বলে ৪৮ রানের ইনিংস শেষ হয় মেন্ডিসের। তিনি এই ইনিংস খেলার পথে ৮টি চার ও একটি ছক্কা মেরেছেন। ডানহাতি এই ব্যাটারের পর আউট হয়েছেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসও। 

প্রথম ইনিংসে ১৯৯ রানের ইনিংস খেলা ম্যাথুসকে শূন্য রানে ফেরান তাইজুল। বাঁহাতি এই স্পিনারের বলে ফিরতি ক্যাচে আউট হয়েছেন ম্যাথুস। তাতে প্রথম সেশনে দুই উইকেট হারায় লঙ্কানরা। সতীর্থদের আসা যাওয়ার মাঝেও হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন করুনারত্নে। ১৩২ বলে ক্যারিয়ারের ২৮তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন লঙ্কান অধিনায়ক।

লাঞ্চ থেকে ফেরার চতুর্থ ওভারেই শ্রীলঙ্কা শিবিরে আঘাত হানেন তাইজুল। বাঁহাতি এই স্পিনারের আউট সাইড অফ স্টাম্পের ফুল বলে মিড উইকেট দিয়ে খেলতে গিয়ে আউট হয়েছেন করুনারত্নে। মিড উইকেটে থাকা মুমিনুল হকের দুর্দান্ত ক্যাচে ৫২ রানে ফেরেন লঙ্কান অধিনায়ক।

অধিনায়ক করুনারত্নেকে হারানোর পরই কিছুটা ব্যাকফুটে চলে যায় শ্রীলঙ্কা। এরপর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে দ্রুত ফিরিয়ে ম্যাচে আরও ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ নেয় বাংলাদেশ। এই লঙ্কান অলরাউন্ডারকে মুশফিকুর রহিমের ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফিরিয়েছেন সাকিব আল হাসান।

এরপর অবশ্য প্রতিরোধ গড়ে তুলেন ডিকওয়েলা ও চান্দিমাল। সপ্তম উইকেট জুটিতে তারা দুজনে মিলে যোগ করেন অবিচ্ছিন্ন ৯৯ রান। হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেয়া ডিকওয়েলা অপরাজিত ৬১ রান আর চান্দিমাল অপরাজিত রয়েছেন ৩৯ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৬০ রান। এমন সময় টেস্ট ড্র মেনে নেন দুই দলের অধিনায়ক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা (প্রথম ইনিংস): ৩৯৭/১০ (১৫৩ ওভার) (ম্যাথুস ১৯৯, চান্দিমাল ৬৬, কুশল মেন্ডিস ৫৪; নাঈম ৬/১০৫, সাকিব ৩/৬০)।
বাংলাদেশ (প্রথম ইনিংস): ৪৬৫/১০ (১৭০.১ ওভার) (তামিম ১৩৩, মুশফিক ১০৫, লিটন ৮৮, জয় ৫৮; রাজিথা ৪/৬০, আসিথা ৩/৭২)।

শ্রীলঙ্কা (দ্বিতীয় ইনিংস): ২৬০/৬ (৯০.১ ওভার) (ফার্নান্দো ১৯, করুনারত্নে ৫২, মেন্ডিস ৪৮, ডিকওয়েলা ৬১*, চান্দিমাল ৩৯*; তাইজুল ৪/৮২, সাকিব ১/৫৮)