The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন: আত্মহত্যার চেষ্টা

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন: আত্মহত্যার চেষ্টা

খালেদ রায়হান

চন্দনাইশ (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ 

 

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকা অনশন করেও কোন সুরাহা না হওয়ায় ব্লেইড দিয়ে নিজ হাত ক্ষতবিক্ষত করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে বলে জানাযায়। ঘটনাটি ১৮ মে রাত ৮টায় উপজেলার চন্দনাইশ পৌরসভার জোয়ারা রাস্তার মাথা এলাকায় ঘটে।

দেবীলতা রানী মন্ডল, প্রকাশ অনুপমা (৩০) নামের এক নারী বুধবার (১৮মে) সকাল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশনকালে  ঐ এলাকার শত শত নারী পুরুষ সেখানে জড়ো হয়। জানা যায়, যশোর জেলার  বাঘারপাড়া  থানার  ছোট খদরা এলাকার নারায়ন কুমার মন্ডলের মেয়ে দেবীলতা রানী মন্ডল (৩০) এর সাথে চন্দনাইশ পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড, বদুরপাড়া- সরকার বাড়ীর তপন সরকারের ছেলে রকি সরকার  প্রতারনা করে ভুল ঠিকানা দিয়ে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। সরেজমিনে গিয়ে, যশোর থেকে আসা দেবী লতা রানী মন্ডলের সাথে কথা বলে জানা যায় তার বাড়ী যাশোর, সে বিবাহিতা তবে ওই স্বামী ৫ বছর যাবৎ যোগাযোগ  না রাখায় তাকে  মৃত হিসেবে ধরে নেয় সে ।এ সব রকিকে বললে সে সব জেনে শুনে আমাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে  বাসায় যাতায়াত  করে শরীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং  বিভিন্ন অযুহাতে বিভিন্ন সময়ে প্রায় দেড় লাখ টাকার মত আমার কাছ থেকে নেয়। এক পর্যায়ে এ বছরের ২৯ এপ্রিল সন্ধ্যায়  বিয়ের কথা পাকা করে, এরপর থেকে মোবাইল ফোন বন্ধ রাখে। তার খোঁজ না পাওয়াতে যশোর পুলিশ সুপারের বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ সুপার ডিবি পুলিশের ওসিকে তদন্ত দিলে ঐ ছেলেটির বাড়ির  সন্ধান পাওয়া যায়। মেয়েটি গত মঙ্গলবার গভীর রাতে চন্দনাইশ থানায় আশ্রয় নেয় বলে জানান।প্রেমিকের বাড়িতে অনশন কালে তাকে এলাকার মানুষ হেনস্তা করে মানসিক ভারসাম্যহীন বলে তাড়িয়ে দিলে সে প্রেমিকের বাড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দুরে চট্টগ্রাম - কক্সবাজার মহাসড়কের জোয়ারা রাস্তার মাথা এলাকায় এসে ব্লেড দিয়ে হাত কাটতে থাকে।

এই ব্যাপারে রকির পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে বাড়িতে কাউকে না পেয়ে রকির মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে তার প্রতিবেশি চাচা মাস্টার অলোক কুমার সরকারের সাথে কথা হলে,  তারা ঘটনার বিষয় স্বীকার করে বলেন, মেয়েটি বিবাহিত এবং তার স্বামী রয়েছে স্বামীকে ডিভোর্স দেয় নাই। যশোর থেকে তার কোনো অভিভাবক নিয়ে না আসাতে তার সাথে কোনো প্রকার মীমাংসা করা সম্ভব হচ্ছেনা। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে চন্দনাইশ থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, মেয়েটি এক প্রকার ভারসাম্যহীন। যে এলাকায় ঘটনা ঘটেছে সেখান থেকে মামলা করে আসলে অভিযুক্ত ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।