The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

আহমদ ছফার জন্মদিন আজ

আহমদ ছফার জন্মদিন আজ
ছবি: সংগৃহীত

‘একটা মানুষের মধ্যেই গোঁজামিল থাকে। কিন্তু যে সাপ সে হান্ড্রেড পারসেন্ট সাপ। যে শেয়াল সে হান্ড্রেড পার্সেন্ট শেয়াল। মানুষ সাপও হইতে পারে, শেয়ালও হইতে পারে, পাখিও হইতে পারে। মানুষেরই বিভিন্ন চরিত্র নেয়ার ক্ষমতা আছে। বুঝছো, গ্রাম দেশে আগে সাপ আর শেয়াল পাওয়া যাইতো। এগুলা নাই এখন। কারণ সাপ, শেয়াল এরা মানুষ হিসাবে জন্মাইতে আরম্ভ করছে’।

নাসির আলী মামুনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ঠিক এই কথাগুলোই বলেন আহমদ ছফা। সাবলীল ভাষায় লেখা এই সাক্ষাৎকারটি ছাপা হয় ‘আহমদ ছফার সময়’ বইটিতে। খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছিল বইটি। কারণ বইয়ের মানুষটি যে ছিলেন সবার চোখের মণি। সারাজীবন নিপীড়িত, বঞ্চিত মানুষের না বলা কথাগুলো বলে যাওয়া এই মানুষটি আজও মিশে আছেন তরুণ সমাজের প্রেরণায়, চেতনায়।

তিনি ছিলেন- একজন লেখক, ঔপন্যাসিক, কবি, চিন্তাবিদ এবং গণবুদ্ধিজীবি! জাতীয় অধ্যাপক আব্দুর রাজক ও সলিমুল্লাহ খানসহ আরও অনেকেই বলেছেন, মীর মোশাররফ হোসেন এবং কাজী নজরুল ইসলামের পর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাঙালি মুসলমান লেখক হচ্ছেন আহমেদ ছফা...সব সময়ই তার লিখায় বাংলাদেশি জাতিসত্তার পরিচয় নির্ধারণ প্রাধান্য পেয়েছে।

বাংলাদেশে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তার রচিত বুদ্ধিবৃত্তি নতুন বিন্যাস প্রবন্ধগ্রন্থে তিনি বুদ্ধিবৃত্তিক জগতের মানচিত্র অংকন করেছেন। একইসঙ্গে বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবীদের সুবিধাবাদী নগ্নরূপ উন্মোচন করেন। আহমেদ ছফা তার বিখ্যাত বাঙালি মুসলমানের মন প্রবন্ধে বাঙালি মুসলমানের আত্মপরিচয়ের হাজার বছরের বিবর্তন বিশ্লেষণপূর্বক তাদের পশ্চাদ্গামীতার কারণ অনুসন্ধান করেছেন।

আর এই গুনী লেখকের জন্মদিন! ১৯৪৩ সালের ৩০ জুন এই গুনী চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার গাছবাড়িয়া গ্রামের এক মধ্যবিত্ত পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। সমাজের ইতিহাস, বিবর্তন ও মননশীলতা নিয়ে ছফা লিখেছেন ‘সিপাহি যুদ্ধের ইতিহাস’ ও ‘যদ্যপি আমার গুরু’-এর মতো গ্রন্থ। অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক আহমদ ছফা সম্পর্কে মন্তব্য করেছিলেন, ‘ছফার রচনাবলী গুপ্তধনের খনি।’ তিনি ছিলেন দক্ষ এবং উদ্যমী সংগঠক। জীবনের নানা পর্যায়ে সাংগঠনিক ও প্রতিবাদী রাজনৈতিক তৎপরতায় যুক্ত ছিলেন তিনি। আহমদ ছফা ২০০১ সালের ২৮ জুলাই মৃত্যুবরণ করেন। 

সূত্র: সময় নিউজ।