The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২

২৫০ কোটি টাকার মালিক, তবু জীবন একঘেয়ে!

২৫০ কোটি টাকার মালিক, তবু জীবন একঘেয়ে!
সংগৃহীত

সবাই তো সুখী হতে চায়…তবু কেউ সুখী হয়, কেউ হয়না... মান্নাদের এই গানের মতই কিন্তু সবাই ধনী হতে চায় কিন্তু কেউ হয় , কেউ হয়না। স্বাভাবিক দৃষ্টিতে মনেহয় অনেক ধনী হলেই বুঝি অনেক সুখ আসে।

কিন্তু মোটেও তেমনটা নয়। সুখী হওয়ার সঙ্গে অর্থের যোগ নিশ্চই আছে, তবে সেটিই একমাত্র কারণ নয়।  এই কারণেই বুঝি, ২৫০ কোটি টাকার মালিক হয়েও মাত্র ৩৫ বছরের জীবনটাকে বড্ড একঘেয়েমি লাগে কারও কারও।  

ব্রিটেনের একজন নাগরিক। যিনি নিজের নাম না প্রকাশ করার সর্তে তার এই উপলব্ধির কথা জানিয়েছেন।

৩৫ বছর বয়সেই অনেক টাকা উপার্জন করেছেন তিনি। কিন্তু উত্থানের এই ঊর্ধ্বমূখী সময়ে তার মুক্তি পাওয়ার ইচ্ছে জেগেছে।

জীবন থেকে মুক্তি পেতে চাইছেন তিনি। কোটিপতি হওয়া সত্ত্বেও সেই জীবনের প্রতি বিতৃষ্ণা চলে এসেছে।

তাই আগের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন তিনি।

ওই ব্যক্তির জানানো তথ্য মতে, তার কোটিপতি হওয়ার নেপথ্যে রয়েছে বিটকয়েন।

২০১৪ সালে ডিজিটাল মুদ্রা বিটকয়েন সম্পর্কে জানতে পারেন তিনি। তারপর থেকেই ডিজিটাল মুদ্রায় বিনিয়োগ করা শুরু করেন।

দেড় বছরের মধ্যে তার সঞ্চয়ের পুরো টাকাটাই বিনিয়োগ করেন। ২০১৭ সারে ২০ লক্ষ পাউন্ড লাভ হয় তার।

২০১৯ সালে ডিজিটাল মুদ্রা থেকে ২.৬ কোটি পাউন্ডে গিয়ে পৌঁছায় তার আয়।

জীবনের সব শখ স্বাচ্ছন্দ্য মিটিয়েও এই বিপুল পরিমাণ টাকা শেষ করতে না পেরে বিরক্ত হয়ে উঠেছেন তিনি।

এক জন কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবে একটি সংস্থায় মাসিক ২৫ লক্ষ টাকা বেতনে কাজ করতেন তিনি। বেতনের বেশির ভাগ টাকাই সঞ্চয় করতেন।

১০ বছর কাজ করার পর চাকরি ছেড়ে দেন। চাকরিজীবনে বিপুল টাকার মালিক এবং ঐশ্বর্যের স্বপ্ন দেখতেন। কিন্তু যখন কোটি কোটি টাকার মালিক হলেন, তখন বলছেন, এই বিপুল পরিমাণ টাকা তার জীবনে একঘেয়েমি এনে দিয়েছে।

সূত্রঃ আনন্দবাজার অনলাইন