The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১

খুনের মামলায় অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ আটক

খুনের মামলায় অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ আটক
ছবি: সংগৃহীত

যুব তৃণমূলের সভাপতি ও টলিউড অভিনেত্রী সায়নী ঘোষকে আটক করেছে পুলিশ। ত্রিপুরার পোলো হোটেল থেকে স্থানীয় পুলিশ তাকে আটক করে। রোববার বিকেলে তাকে খুনের চেষ্টার অভিযোগে গ্রেফতার করে আগরতলা পুলিশ। বর্তমানে থানায় রয়েছেন তিনি।

হিন্দুস্তান টাইমস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, শনিবার রাতে নির্বাচনী প্রচার সেরে হোটেলে ফিরছিলেন তৃণমূল নেত্রী সায়নী ঘোষ। গাড়িতে চালকের পাশের আসনে বসেছিলেন তিনি। এ সময় যানজটে আটকে যায় তার গাড়ি। গাড়ির পেছনের আসনে বসেছিলেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ অর্পিতা ঘোষ ও সুদীপ রাহা। গাড়িটি যানজটে আটকে যাওয়ায় আশেপাশের লোকেরা সায়নীকে দেখে হাত নাড়েন ও ‘খেলা হবে’ স্লোগান দিতে থাকেন। তৃণমূল নেতা-নেত্রীরাও পাল্টা স্লোগান দিতে থাকেন।

ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সফরের ঠিক ২৪ ঘণ্টা আগে আগরতলা পূর্ব মহিলা থানা ঘিরে বিজেপি-র তাণ্ডবের অভিযোগ করেছে তৃণমূল। তাদের অভিযোগ, দুষ্কৃতীকারীদের হামলায় রক্তাক্ত হয়েছেন একাধিক তৃণমূল কর্মী এবং নেতা। এই প্রেক্ষিতে টুইট করে বিপ্লব দেবকে সরাসরি আক্রমণ করেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তার কিছু পরেই গ্রেফতার করা হল সায়নীকে।

সায়নীর গ্রেফতার নিয়ে টুইটে কুণাল ঘোষের প্রতিক্রিয়া, ‘অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করল সায়নী ঘোষকে। ধিক্কার ত্রিপুরা সরকার। থানায় হামলাকারীরা গ্রেফতার হল না। গ্রেফতার হল সায়নী।’

রোববার সকাল থেকেই আগরতলা পূর্ব থানায় ছিলেন সায়নী। তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। সহকর্মীর পাশে থাকতে থানাতেই রয়েছেন সুস্মিতা দেব-সহ সাবেক সাংসদ অর্পিতা ঘোষ ও কুণাল ঘোষ। সায়নীকে না ছাড়া পর্যন্ত তারা থানাতেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন রাজ্যসভার সাংসদ। বিজেপি-র বিরুদ্ধে থানায় ঢুকে হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে।

সুস্মিতার দাবি, থানার বাইরে লাঠি হাতে, হেলমেট পরে জমায়েত করে বিজেপি। সায়নী থানায় ঢুকতেই আক্রমণ করা হয়। সেই সঙ্গে তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিকের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে বলেও অভিযোগ।

উল্লেখ্য, ‘হিট অ্যান্ড রান’-এর অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সায়নী ঘোষকে নিয়ে তৃণমূল নেতারা আগরতলা মহিলা থানায় ঢোকার পর থেকেই উত্তেজনা ছড়ায়। তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগ, তাদের থানায় ডেকে এনে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালানো হয়েছে।

স্থানীয় তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিকের দাবি, ‘পুলিশকে কাজে লাগিয়ে এভাবে তৃণমূলের পথরোধ করার চেষ্টা করছে বিজেপি। নেতা কর্মীদের উপর ইটবৃষ্টি চলছে, পুলিশ নীরব দর্শক। তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক তথা মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘ত্রিপুরায় জঙ্গলের রাজত্ব চলছে। থানায় ডেকে এনে মেরে ফেলার পরিকল্পনা ছিল।’

শেষমেশ রোববার বিকেলে গ্রেফতার করা হল সায়নী ঘোষকে।


সর্বশেষ