The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা সোমবার, ২৩ মে ২০২২

ধানুশ-ঐশ্বরিয়ার বিচ্ছেদ নিয়ে ধোঁয়াশা

ধানুশ-ঐশ্বরিয়ার বিচ্ছেদ নিয়ে ধোঁয়াশা
ছবি: সংগৃহীত

“বন্ধু হিসেবে, জুটি হিসেবে, বাবা-মা হিসেবে ১৮ বছরের এই পথ চলা। সফরটা ছিল মানুষ হিসেবে বেড়ে ওঠার, একে অপরকে বুঝে ওঠার, মানিয়ে চলার। আজ আমরা এমন এক সিদ্ধান্তে এসে পৌঁছেছি, যেখানে আমরা বুঝতে পারছি এবার আমাদের পথ আলাদা হওয়াটাই ভালো। আমি আর ঐশ্বর্যা আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যুগল হিসেবে এতদিন থেকেছি। এবার নিজেদের নিজেদেরকে বোঝার পালা। আগামী দিনগুলোতে বরং একে অপরকে বোঝার জন্য আর একটু সময় দেব। সকলের কাছে অনুরোধ অনুগ্রহ করে আমাদের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাবেন এবং আমাদের ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয়তা বজায় রাখতে দেবেন।’ গত ১৮ জানুয়ারি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এমনটাই পোস্ট করে স্ত্রী ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে ১৮ বছরের সংসার জীবন ইতি টানার ঘোষণা দেন ধানুশ।

কিন্তু ধানুশ-ঐশ্বরিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেওয়ার একদিন পর ধানুশের বাবা কস্তুরী রাজা রজনীকান্ত কন্যার সঙ্গে তার ছেলের ডিভোর্সের খবরকে পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছেন।

এক সাক্ষাৎকারে ধানুশের বাবা বলেন, ‘এটি পারিবারিক কলহ, সাধারণত এমনটা বিবাহিত দম্পতির মধ্যে হয়ে থাকে। স্পষ্টতই, এটা ডিভোর্স নয়। ’ 

ধানুশ-ঐশ্বরিয়া চেন্নাইতে ছিলেন না, হায়দ্রাবাদে আছেন। এই তারকা দ্বয়কে তিনি পরামর্শ দিয়েছেন বলেও জানান।  

১৭ জানুয়ারি সামাজিকমাধ্যমে ধানুশ ও ঐশ্বরিয়া যৌথভাবে ডিভোর্সের ঘোষণা দিয়েছেন। তারা দুজন মিলেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন। একইসঙ্গে তাদের বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানানোরও অনুরোধ করেন এই তারকাদ্বয়।  

টুইটারে ধানুশ লেখেন, ‘আমরা এমন এক সিদ্ধান্তে এসে পৌঁছেছি, যেখানে আমরা বুঝতে পারছি দু’জনের পথ আলাদা হওয়াটাই ভালো। আমি আর ঐশ্বরিয়া আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দম্পতি হিসেবে এতদিন একসঙ্গে থেকেছি। এবার নিজেদেরকে আলাদাভাবে বোঝার পালা। ’

সবার উদ্দেশ্যে ‘আতরঙ্গি রে’খ্যাত অভিনেতা লেখেন, ‘সকলের কাছে অনুরোধ অনুগ্রহ করে আমাদের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাবেন। একই সঙ্গে আমাদের দু’জনের ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয়তা রক্ষা করতে দেবেন। ’

হঠাৎ করে কী এমন ঘটলো যে কারণে ধানুশ ও ঐশ্বরিয়ার বিচ্ছেদ হয়েছে, এর কারণ জানাননি দু’জনের কেউই।

২০০৪ সালে ঐশ্বরিয়াকে বিয়ে করেন ধানুশ। তাদের সংসারে রয়েছে দুই ছেলে যাত্রা ও লিঙ্গা।