The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২

  • ‘দেশে আর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে না’ প্রধানমন্ত্রীর জন্যই সারাদেশে শান্তির সুবাতাস বইছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার ‘ত্বরিৎ’ আবেদন করেছে ইউক্রেন বিএনপির বক্তব্য ও রডের মাথায় জাতীয় পতাকা একসূত্রে গাঁথা: তথ্যমন্ত্রী লঘুচাপ সৃষ্টির পূর্বাভাস, বাড়তে পারে বৃষ্টি পুতিনকে ‘রক্তপিপাসু’ বললেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পাবনায় কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে যুবককে হত্যা দুর্গাপূজার সাথে মিশে আছে চিরায়ত বাংলার ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি: রাষ্ট্রপতি মোল্লাহাটে শিশু কিশোর কিশোরী কার্যালয়ের যুগপূর্তি অনুষ্ঠিত বিএনপির মিথ্যাচারে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী
  • চীনে ভূমিকম্পের ১৭ দিন পর এক ব্যক্তি উদ্ধার

    চীনে ভূমিকম্পের ১৭ দিন পর এক ব্যক্তি উদ্ধার
    ছবি: সংগৃহীত

    চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ভূমিকম্পের পর ১৭ দিন ধরে পাহাড়ে নিখোঁজ এক ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার স্থানীয় এক গ্রামবাসী তাকে সামান্য আহত অবস্থায় জীবিত উদ্ধার করেছেন বলে খবর দিয়েছে বিবিসি।

    গত ৫ সেপ্টেম্বর দেশটির সিচুয়ান প্রদেশে শক্তিশালী ৬ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্পে অন্তত ৯৩ জন নিহত ও আরও চার শতাধিক আহত হন। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সিচুয়ানের জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্তব্যরত ছিলেন গ্যান ইউ নামের ওই ব্যক্তি।

    ভূমিকম্পের পর সিচুয়ানের ‘ওয়াংডং জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে’র কর্মী গান ইউ, তাঁর আহত সহকর্মীদের উদ্ধারে সাহায্য করতে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু, তারপর থেকেই তাঁর আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। চিনের রাষ্ট্রীয় রেডিয়োজানিয়েছে, বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) এক গ্রামবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় গান ইউ-কে উদ্ধার করেন। জানা গিয়েছে গত ৫ সেপ্টেম্বর যখন ভূমিকম্প হয়েছিল, সেই সময় গান ইউ তাঁর এক সহকর্মীর সঙ্গে কাজে ছিলেন। ভূমিকম্পের পরই তাঁরা দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে বাঁধ থেকে জল ছেড়েছিলেন। এর ফলে ওই অঞ্চলে বন্যা হয়নি। শুধু তাই নয় গান ইউ এবং তাঁর সহকর্মী লুও ইয়ং আহত সহকর্মীদের প্রাথমিক শুশ্রুষাও দেন।

    ওয়াংডং জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি প্রত্যন্ত পাহাড়ি অঞ্চলে অবস্থিত। শহরাঞ্চল থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে। বন্যা প্রতিরোধ এবং আহত সহকর্মীদের শুশ্রুষার পর তাঁরা দুই জন ওই দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁটে পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু, গান চশমা ছাড়া ভাল দেখতে পান না। এদিকে ভূমিকম্পের সময় তাঁর চশমাটি হারিয়ে গিয়েছিল। ফলে পাহাড়ি পথে হাঁটতে গিয়ে প্রবল সমস্যার মুখে পড়েছিল তারা। এক সময়ে অনেক দূরে তাঁরা উদ্ধারকারীদের দেখতে পেয়েছিলেন।

    লুও জানিয়েছেন, তাঁরা তাঁদের জামা খুলে উড়িয়ে বিভিন্ন ভাবে উদ্ধারকারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু, লাভ হয়নি। শেষে তাঁরা ঠিক করেন, গান ওখানেই অপেক্ষা করবেন, লুও এগিয়ে গিয়ে সাহায্য নিয়ে ফিরে আসবেন। গানকে, বাঁশ দিয়ে একটি অস্থায়ী খাট বানিয়ে দেন লুও, আর খাওয়ার জন্য কিছু কাঁচা ফল দিয়ে যান।

    ৮ সেপ্টেম্বর উদ্ধারকারীদের একটি হেলিকপ্টার দেখতে পেয়ে, আগুন জ্বালিয়ে তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন লুও। ১১ সেপ্টেম্বর গানের সেই অস্থায়ী আবাসের খোঁজ মিলেছিল। কিন্তু সেখানে গানের কিছু পোশাক এবং পায়ের ছাপ ছাড়া কিছু ছিল না। আশঙ্কা করা হয়েছিল, হাইপোথার্মিয়ায় গানের মৃত্যু হয়েছে।

    জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি যে পাহাড়ে অবস্থিত তারই পাদদেশে একটি গ্রাম রয়েছে। চলতি সপ্তাহের শুরুতে ত্রাণ শিবির থেকে গ্রামের ফিরে এসেছিলেন গ্রামবাসীরা। গান-এর অনুসন্ধান চলছে শুনে, বুধবার, নি তাইগাও নামে এক গ্রামবাসীও অনুসন্ধান অভিযানে যোগ দেন। মাত্র দুই ঘণ্টার মধ্যেই এক গাছের নিচে আহত অবস্থায় গানকে খুঁজে পান তিনি। তারপর অন্যান্য উদ্ধারকারীরা সেখানে আসেন, গানকে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয় এক হাসপাতালে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাঁর শরীরের বেশ কয়েকটি হাড় ভেঙে গিয়েছে। তবে, শরীরের থেকেও তাঁর মানসিক আঘাত অনেক বেশি বলে শঙ্কা করা হচ্ছে।


    সর্বশেষ

    আরও পড়ুন