The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

ঢাকা বিমানবন্দরে মিলবে ইউরোপীয় সুযোগ-সুবিধা

ঢাকা বিমানবন্দরে মিলবে ইউরোপীয় সুযোগ-সুবিধা
হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ। প্রতিকী ছবি

কল্পনার জগৎটাকে আপনি যদি এভাবে সাজান, রেলপথে দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে এসে নামলেন কমলাপুর রেলস্টেশনে। সেখান থেকে পাতালরেলে করে খিলক্ষেত হয়ে কাওলা। সেখানে নেমে সুড়ঙ্গপথে চলে যাবেন হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালে। বিমানবন্দরের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে উঠে গেলেন উড়োজাহাজে। এরপর নিজ গন্তব্যে। এ সময়ে পড়বেন না কোনো যানজটে। কমলাপুর থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত দেখবেন না সূর্যের আলো।

না, এটি স্বপ্ন নয়, রূপ পেতে যাচ্ছে বাস্তবে। রাজধানীর কাওলা রেলস্টেশনকে তৈরি করা হচ্ছে শুধু হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালে যাওয়ার জন্য। দেশ থেকে যাঁরা বিদেশ যাবেন বা বিদেশ থেকে যাঁরা দেশে আসবেন, তাঁদের যাত্রা সহজ করতে বিমানবন্দরকে সাজানো হচ্ছে এভাবেই।

বাংলাদেশে তিনটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থাকলেও সেগুলোতে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা অপ্রতুল। এ নিয়ে বিমানবন্দরগুলো ব্যবহার করা যাত্রীদের অভিযোগের যেন শেষ নেই। তবে এবার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মিলবে ইউরোপ-সিঙ্গাপুরের মতো সেবা।

বিমানবন্দরটির তৃতীয় টার্মিনালের নির্মাণকাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এটি চালু হলে বছরে যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা ৮০ লাখ থেকে বেড়ে ২ কোটিতে উন্নীত হওয়ার আশা করা হচ্ছে। এ ছাড়া নতুন কার্গো ভিলেজ নির্মাণ শেষ হলে আমদানি-রপ্তানি পণ্য পরিবহন ২ লাখ টন থেকে ৫ লাখ টনে পৌঁছাবে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ২১ হাজার ৩৯৯ কোটি টাকার মেগা প্রকল্পে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ দেশের অর্থনীতিতে নতুন সম্ভাবনা তৈরি হবে। আমদানি-রপ্তানি ও দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নানামুখী গতি আসবে। যাত্রীর সঙ্গে পণ্য পরিবহনের সুযোগ-সুবিধা বাড়ার সুফল পাবে বাংলাদেশ।

এ বিষয়ে ফ্রেইট ফরোয়ার্ড অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক কে জেড ইবনে আমিন সোহাইল বলেন, তৃতীয় টার্মিনালটি চালু হলে যাত্রী সেবা বাড়বে কয়েক গুণ। সেইসঙ্গে কার্গো ভিলেজ সচল হলে আকাশপথে পণ্য পরিবহনও একইভাবে বাড়বে। আধুনিক সুবিধা থাকায় সেবা গ্রহীতারাও সন্তুষ্ট হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আগামী ১০ বছরে শাহজালাল বিমানবন্দর দিয়ে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে সাময়িকভাবে সুফল মিলবে। বিদেশি অনেক যাত্রী ও কার্গো এয়ারলাইন্স এটি ব্যবহারে আগ্রহ দেখাচ্ছে। বিষয়টি সামনে রেখে ইউরোপীয় মানের উন্নত সেবা নিশ্চিত করতে টার্মিনাল পরিচালনায় গুরুত্ব দিতে হবে।


সর্বশেষ

আরও পড়ুন