The Bangladesh Today | Uniting people everyday

ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১

সবাই নৌকায় উঠলে বিপদ আছে: তথ্যমন্ত্রী

সবাই নৌকায় উঠলে বিপদ আছে: তথ্যমন্ত্রী
ফাইল ছবি

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী, ভূমিদস্যু, দুর্নীতিবাজদের আওয়ামী লীগের দরকার নেই। একইসঙ্গে পিঠ বাঁচানোর জন্য যারা দলে ভিড়তে চায় তাদের সম্পর্কে সতর্কবার্তা দিয়ে আওয়ামী লীগের প্রাণ তৃণমূলের কর্মীদের মূল্যায়নের আহবান জানান তিনি। 

আজ রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সার্কিট হাউসে এ আহ্বান জানিয়ে মানুষের সঙ্গে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ না করতে ছাত্রলীগ-যুবলীগের প্রতি হুঁশিয়ারি দেন হাছান মাহমুদ। 

এছাড়া উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে বিএনপির অতিথি পাখিদের লাল কার্ড দেখানোর আহবান জানান মন্ত্রী।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, দল যেহেতু পৌনে ১৩ বছর ধরে ক্ষমতায় এখন আওয়ামী লীগের নৌকায় উঠতে চায় অনেকেই, নেতাকর্মীদের অনুরোধ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সবাইকে আওয়ামী লীগের নৌকায় দরকার নেই। যারা অতীতে ভিন্ন দল করেছে, পিঠ বাঁচানোর জন্য যারা দলে আসতে চায় তাদের দরকার নেই। যারা সন্ত্রাসী, মাদকের সঙ্গে জড়িত, যারা ভূমিদস্যু, চাঁদাবাজ দলে তাদের ঠাঁই নেই। দুর্নীতিবাজ এবং দল ভাঙিয়ে যারা চাঁদাবাজি করতে চায় তাদেরও আওয়ামী লীগের দরকার নেই। 

তিনি বলেন, যাচাই বাছাই করে আওয়ামী লীগের নৌকায় তুলতে হবে, কারণ নৌকায় বেশি যাত্রী ভালো না। নৌকায় বেশি যাত্রী বিপদের কারণ। যারা এই সাড়ে ১৩ বছর ধরে দল করছে তারা দলের দুঃসময় দেখে নাই। যারা দুঃসময়ে নেত্রীর পাশে ছিল, দলের পাশে ছিল, তাদেরকেই নেতৃত্বে বসাতে হবে। 

আসন্ন জাতীয় নির্বাচন নিয়ে মন্ত্রী বলেন, মাত্র দু’বছরের বেশি সময় বাকি আছে নির্বাচনের। নির্বাচনের সময় বিএনপিসহ অনেকে অতিথি পাখির মতো ভোট চাইতে আসবে। তাদের লাল কার্ড দেখিয়ে দিতে হবে। কিছুদিন আগেও মানুষ ছেঁড়া কাপড় পরতো, পায়ে জুতা স্যান্ডেল ছিল না। এখন আর কেউ খালি পায়ে, খালি গায়ে থাকে না, আর কুড়ে ঘর খুঁজে পাওয়া যায় না। এসব শেখ হাসিনার যাদুকরী নেতৃত্বের অবদান। উন্নয়নের সরকার শেখ হাসিনাকে ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার আহবান জানান তিনি। 

এসময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শফিক, কেন্দ্রীয় নেতা হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া, সফুরা বেগম রুমি, জাতীয় সংসদের হুইপ ও সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহাবুব আর বেগম গিনি, পলাশবাড়ি-সাদুল্লাপুর আসনের সংসদ সদস্য ও কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. উম্মে কুলসুম স্মৃতি, গোবিন্দগঞ্জ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সৈয়দ শামস উল আলম হিরু, সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপনসহ জেলা উপজেলা পর্যায়ের আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও কৃষক লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।